নিজের স্বার্থ হাসিল করায় ছিল প্রধান উদ্দেশ্য - Alorpoth24.com | সত্য প্রকাশে কলম চলবেই

শিরোনাম

07 June, 2020

নিজের স্বার্থ হাসিল করায় ছিল প্রধান উদ্দেশ্য


মোঃ সাজেদুল ইসলাম, মাগুরা প্রতিনিধিঃ ৩নং শ্রীকোল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আমীর হোসেন মোল্লার বাড়ি লুটপাট, ও বর্বরোচিত হামলা ও মুক্তিযুদ্ধে শ্রীপুর আঞ্চলিক বাহিনির প্রধান আকবর হোসেন মিয়ার বাড়ি ভাঙচুর,ও লুটপাট  ছিলো শ্রীকোল ইউনিয়ন, তথা শ্রীপুর উপজেলা থেকে আওয়ামী লীগের ধ্বংসের প্রধান লক্ষ। 

এ হামলা, লুটপাট, ভাঙচুরের প্রধান পরিকল্পনা শুনুন চেয়ারম্যান মুতাসিম বিল্লার সংগ্রাম চাচা তিনি জানেন তার জেতা ইহোকাল পরকাল এক করলেও সম্ভব নয় তাই, পরবর্তী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তার শক্ত কোনো প্রতিপক্ষ না রাখা। অর্থ টা এরকম, কুটি মিয়া আমেরিকা চলে গেছে এখন মাঠ ফাকা, আসবেনা সম্ভবত, কিন্তু তৃতীয় ব্যক্তি আমীর হোসেন মোল্লা আওয়ামী লীগকে ধরে রেখে ভালো অবস্থানে উঠে গেছে। এখন আমীর মোল্লা যেন আগামী দুই তিন বছর উঠে দাড়াতে না পারে (নির্বাচন তো দূরে থাক) সেই মহাপরিকল্পনা এটেছে, সংগ্রাম চেয়ারম্যান (৩নং শ্রীকোল ইউনিয়ন) তিনি বিএনপির ইউনিয়ন সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে। কিন্তু এই মহাপরিকল্পনা এটেছিলো পুলিশের শ্রীপুর থানার ওসি মাহাবুব ও এ এস আই রমজানকে দিয়ে ঘটনাটা ঘটানোর জন্য। 

সামনে শ্রীকোল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের শক্ত কোনো প্রার্থী থাকলো না, কিন্তু ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাদশা মেম্বার টুপিপাড়ার, তার বাড়ি ও তার দলের লোকদের উপর হামলার পরিকল্পনা চলছে, দেখবেন এই চাপাচাপি উঠে গেলেই আক্রমণ হবে শিওর। আবার আসি আমীর মোল্লা ভাইয়ের (সভাপতি ৩নং শ্রীকোল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ)  বাড়ি ভাঙ্গা নিয়ে, সব কিছু আক্রমণ শেষ পুলিশ ধরা খেয়ে যাওয়ার মুহুর্তে, তখন ধূর্ত ওসি মাহাবুব শিকার করলেন সংগ্রামের ৬/৭ হাজার লোকজন হামলা করেছে। তখন ওসি মাহাবুব বাঁচতে পারলেন না, সঙ্গে সঙ্গেই ক্লোজড, এ এসআই রমজান ও ক্লোজড। 

কিন্তু বেচে গেলেন ধূর্ত স্বার্থ বাদি চেয়ারম্যান সংগ্রাম চাচা।তার কিছুই হবে না, কিন্তু শেষ হয়ে গেলো আওয়ামী লীগ। ধন্যবাদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে তার সময়ে সারাদেশে আপনার আওয়ামী লীগের সংগঠন ভালো নেই শুধুমাত্র এসব বিএনপিলীগ সংগ্রাম চেয়ারম্যানদের মতো লোকের জন্য। এদের বিবেক হারিয়ে গেছে যেখানে প্রায় ১৫০ টি ঘর বাড়ি লুটপাট করেছে, কিন্তু কোনো সুবিধা এখনো পায়নি। শুধুমাত্র শিখর সাহেব একলক্ষ টাকা দিয়েছেন বৈদ্যুতিক মিটার ক্রয়ের জন্য, তাকে ধন্যবাদ তিনি একটু হলেও হেল্প করেছেন। অনেকে শিখর সাহেবকে দোষারোপ করছেন কিন্তু তার বিন্দুমাত্র দোষ ছিলো না। 

কিন্তু সকল পরিকল্পনা স্থানীয় পর্যায়ে সংগ্রাম (চেয়ারম্যান চলতি) ও বিএনপির কিছু লোক করেছিলো। জিতে গেছে বিএনপিলীগ হেরে যায় আওয়ামী লীগ, সারাজীবন এরকম মানুষের জানমাল, ইজ্জত চলে যাবে শুধু আওয়ামী লীগের হেরে যাবে, আমীর মোল্লা সাহেবের বষয় ৮০ বছর, জন্মের পড় থেকেই এই আওয়ামী লীগের পরিবারের সঙ্গেই তিনি জীবন পার করলেন, সর্বশেষ হেরে গেলেন, মৃত্যু ও যেনো তাকে কলুষিত করলো বেঁচে থেকে।

No comments:

Post a Comment