পাচারকালে ধান ভর্তি ২টি ট্রাক আটকের পর ছেড়ে দিলো প্রশাসন - Alorpoth24.com | সত্য প্রকাশে কলম চলবেই

শিরোনাম

27 June, 2020

পাচারকালে ধান ভর্তি ২টি ট্রাক আটকের পর ছেড়ে দিলো প্রশাসন


আসাদুজ্জামান আশিক, ঝালকাঠিঃ
ঝালকাঠি গোডাউন থেকে খুলনা-বাগেরহাট পাচারকালে ধান ভর্তি ২টি ট্রাক আটকের পর ছেড়ে দিলো প্রশাসন । ঝালকাঠি ২টি মিলের নামে বরাদ্দকৃত ৪০মে.টন ধান ভর্তি দুটি ট্রাক খুলনা ও বাগেরহাটের মিলগুলোতে পাচারকালে গত ২৬ জুন শুক্রবার রাজাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে আটক করলেও জেলা প্রশাসনের এক উর্ধতন কর্মকর্তার নির্দেশে ছেড়ে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ৩দিনে ঝালকাঠি খাদ্য বিভাগের লাইসেন্স প্রাপ্ত ৭টি রাইচ মিলের নামে বরাদ্দকৃত ১৪০মে.টন ধান খুলনা ও বাগেরহাট এর বড় বড় রাইচ মিলে পাচার করা হয়েছে। এতে ঝালকাঠির ছোট রাইচ মিলগুলো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ও মিলে কর্মরত শ্রমিকরা কাজের অভাবে বেকার দিন কাটাচ্ছে বলে অভিযোগে জানা গেছে। এঘটনা জানাজানি হলে স্থানীয় ধানের মিল মালিকসহ জনমনে ব্যাপক চাঞ্চল্য ও নানান প্রশ্ন সৃষ্টি হয়েছে।
অভিযোগ উঠেছে, জেলা খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তা, পরিবহন ঠিকাদার ও মিল মালিকদের একটি শক্তিশালী একটি সিন্ডিকেটের সহায়তায় খাদ্য গুদাম থেকে সেই ধান খুলনা-বাগেরহাট বড় বড় রাইচ মিলে পাচার হয়ে আসছে। জেলা প্রশাসন ও আইন শৃঙাখলা বাহিনীর চোখে ধূলো দিয়ে পার্শবর্তী জেলার এসব বড় মিলগুলোতে ধান পাঠানোর বিনিময়ে মালিকদের কাছ থেকে দূর্নীতিবাজ এ সিন্ডিকেটটি টনপ্রতি নিদৃষ্ট পার্সেন্টিস হিসাবে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এবারেও সরকার ধান সংগ্রহ শুরু করার পর থেকেই তৎপর জেলা খাদ্য বিভাগের ২ কর্মকর্তাসহ উক্ত সিন্ডিকেট চুক্তি করে গত তিন দিনে খাদ্য গুদাম থেকে ৭টি ট্রাকে ১শত ৪০ টন ধান খুলনা ও বাগেরহাটে রাইচ মিলে পাচার করেছে।

অভিযোগে জানাগেছে, একটি গোয়েন্দা সংস্থার গোপন সংবাদের ভীত্তিতে শুক্রবার ঝালকাঠি-খুলনা আঞ্চলিক মহাসড়কের বাগরী এলাকায় রাজাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তথা নিবাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ সোহাগ হাওলাদারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঝালকাঠি খাদ্য গুদাম থেকে ২টি ট্রাক ভর্তি ৪০ টন ধান খুলনায় ও বাগেরহাটে পাচারকালে আটক করে। আটককৃত ট্রাক চালকদের কাছে এই ধান খুলনা-বাগেরহাটে প্রেরনের বৈধ কাগজপত্র দেখতে চাইলে তারা ঝালকাঠি মেসার্স সিকদার রাইচ মিল ও মেসার্স তালুকদার এন্টারপ্রাইজ নামে ২ টি রাইচ মিলের নামে রবাদ্দ কাগজপত্র দেখায়। 

No comments:

Post a Comment