পবিত্র মাহে রমজানে বিশেষ আমল - Alorpoth24.com | সত্য প্রকাশে কলম চলবেই

শিরোনাম

30 April, 2020

পবিত্র মাহে রমজানে বিশেষ আমল



ইবাদতের বসন্তকাল মাহে রমজান। সওয়াবের ভরা মৌসুম। রহমত, বরকত, মাগফিরাত ও নাজাতের মাস। প্রিয় রসুল (সা.) বলেন, রমজান বরকতময় মাস, তোমাদের মাঝে উপস্থিত হয়েছে। এ মাসে আল্লাহ একটি রাত দান করেছেন, যা হাজার মাস থেকে উত্তম। যে এর কল্যাণ থেকে বঞ্চিত হলো, সে বঞ্চিত হলো আল্লাহর মহাকল্যাণ থেকে। (ইবনে মাজাহ)। এ মাসে রয়েছে অনেক আমল। আমরা কয়েকটি বিশেষ আমল উপস্থাপন করছি। আমলগুলো কবুল হবে যদি নিচের এই দুই শর্ত পাওয়া যায়। এক. সহি নিয়ত ও ইখলাস। একনিষ্ঠতার সঙ্গে শুধু আল্লাহর জন্য আমল করা। আল্লাহতায়ালা বলেন, আর তাদের কেবল এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল যে, তারা যেন আল্লাহর ইবাদত করে তাঁরই জন্য দীনকে একনিষ্ঠ করে (সূরা বাইয়্যেনাহ, আয়াত ৫)। দুই. ইবাদতের ক্ষেত্রে প্রিয় নবী (সা.)-এর অনুকরণ ও অনুসরণ করা। আল কোরআন বলছে, ‘আর রসুল তোমাদের জন্য যা নিয়ে এসেছেন তা তোমরা গ্রহণ কর, আর যা থেকে তিনি নিষেধ করেন তা থেকে বিরত হও।’ (সূরা হাশর, আয়াত ৭)। আসুন, রমজানের আমলগুলো জেনে নিই। রমজান মাসের প্রধান ও সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ আমল হচ্ছে শরিয়তের বিধান অনুযায়ী ইখলাসপূর্ণ পুরো মাস রোজা রাখা। বুখারি ও মুসলিমে বর্ণিত, যে ব্যক্তি রমজানের রোজা ইমান, সওয়াব, ইখলাসের সঙ্গে রাখবে, তার পূর্ববর্তী সব গুনা ক্ষমা করে দেওয়া হবে।’

তারাবি ও তাহাজ্জুদ আদায় : মহানবী (সা.) ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি ইমান ও ইহতিসাব তথা ইমান, সওয়াব ইখলাসের সঙ্গে রমজান মাসে কিয়ামুল লাইল তথা তারাবি ও তাহাজ্জুদের নামাজ আদায় করবে আল্লাহ তার পেছনের সব গুনা মাফ করে দেবেন।’ (বুখারি ও মুসলিম)। আমরা ২০ রাকাত তারাবির নামাজ আদায়ে মনোযোগী হব। প্রতিদিন অধিক সময় কোরআন তিলাওয়াত করব, অর্থ ও তাফসির বুঝব। হাদিসে বর্ণিত, হজরত জিবরাইল (আ.) রমজানের শেষ দিন পর্যন্ত প্রতি রাতে রসুল (সা.)-এর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতেন আর রসুল (সা.) তাকে কোরআন মজিদ তিলাওয়াত করে শোনাতেন। (বুখারি)।

দান, সদকা-খয়রাত ও রোজাদারকে ইফতার করানো : হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুল (সা.) বলেন, ‘রমজানের সদকা সবচেয়ে উত্তম সদকা।’ (তিরমিজি)। তিনি (সা.) আরও বলেন, ‘যে ব্যক্তি কোনো রোজাদারকে ইফতারি করাবে সেও রোজাদারের সমপরিমাণ সওয়াব পাবে। এতে রোজাদারের সওয়াব মোটেও কমানো হবে না।’ (মিশকাত)।

নিজেকে হালাল উপার্জনে নিয়োজিত রাখা : ইবাদত কবুলের পূর্বশর্ত হলো হালাল রুজি। আহার ও রুজি হারাম হলে আল্লাহর দরবারে ওই ব্যক্তির কোনো ইবাদতই কবুল হবে না। রমজানে এর গুরুত্ব বেড়ে যায় বহুগুণ। রসুল (সা.) রমজানে হালাল রুজির প্রতি যত্নবান ব্যক্তির জন্য ভবিষ্যদ্বাণী উচ্চারণ করে বলেন, ‘যার রমজান মাস নিরাপদে কাটল, তার পুরো বছরই নিরাপদে কাটল।’ (তিরমিজি)।

বেশি বেশি দোয়া ও ইস্তেগফার করা। মহানবী (সা.) ইরশাদ করেন, রমজানে বান্দার দোয়া কবুল করা হয়। (হাদিসের অংশ)। অন্য হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, যে ব্যক্তি রমজান পেয়েও স্বীয় গুণা ক্ষমা করাতে পারল না তার ওপর লানত, ধ্বংস। (বুখারি)।

ইতিকাফ : বুখারি বর্ণিত, হুজুর (সা.) প্রতি রমজানের শেষ ১০ দিন ইতিকাফ করতেন। যে বছর তিনি ইন্তেকাল করেন, সে বছরও ২০ দিন ইতিকাফ করেন। রসুল (সা.)-এর ওফাতের পর তাঁর স্ত্রীরা নিয়মিত ইতিকাফ করতেন।

শবেকদর তালাশ করা : হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুল (সা.) ইরশাদ করেন, ‘রমজানের শেষ ১০ দিনের বেজোড় রাতে শবেকদর তালাশ কর।’ অন্য হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, ‘যে ব্যক্তি ইমান, সওয়াব ও ইখলাসের সঙ্গে শবেকদরে ইবাদত করল তার পূর্ববর্তী সব গুনা ক্ষমা করে দেওয়া হয়।’ (বুখারি ও মুসলিম)।

রমজানে ওমরা আদায় : রসুল (সা.) বলেন, ‘রমজানে ওমরা আদায় হজের সমান সওয়াব।’ (বুখারি)।

পাপ কাজ ছেড়ে দেওয়া : পাপের ফলে রমজান মাসের বরকত ও সওয়াব নষ্ট হয়। রমজানের পবিত্রতা ক্ষুণ্ন করার কারণে কখনো কখনো গুনার ভাগি হতে হয়। তাই রোজাদারের জন্য রমজান মাসে সগিরা, কবিরা ছোট-বড় সব গুনা বর্জন করা আবশ্যক। প্রিয় নবী (সা.) ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তি রোজা রেখে মিথ্যা কথা ও পাপ কাজ ছাড়ল না, আল্লাহর জন্য তার ক্ষুধার্ত ও পিপাসার্ত থাকার কোনো প্রয়োজন নেই। (বুখারি ও মুসলিম)।

এ ছাড়া রমজানের আরও অনেক আমল রয়েছে। তবে উল্লিখিত আমলগুলোই রমজানের বিশেষ আমল। এসব আমল ইমানের সঙ্গে সওয়াবের নিয়তে করতে পারলে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন সম্ভব হবে। আসুন, আমরা এ মাসে বেশি বেশি ইবাদত-বন্দেগির মাধ্যমে আল্লাহর প্রিয় বান্দা হওয়ার চেষ্টা করি। আল্লাহ আমাদের সবাইকে আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।


মুহাম্মাদ  নুরনবী হোসাইন নুর-আলম আল আবেদী
ধর্মীয় শিক্ষক সায়েন্স ল্যাবরেটরী স্কুল চৌমুহনী,কচুঁয়া, চাদঁপুর। 

No comments:

Post a Comment